অন্তিম সময়ের গোলে সুইডিশদের কাঁদিয়ে শেষ আটে ইউক্রেন

নির্ধারিত সময় পেরিয়ে অতিরিক্ত সময়েও চলছে ১-১ খেলা। সবাই যখন টাইব্রেকারের ভাবনায় সময় গুনছে, ঠিক তখনি সুইডেনের জালে ইউক্রেনের শটকৃত বল। ঠিক অন্তিম মুহূর্তেই সুইডেনকে হারিয়ে দিলেন আর্তেম দোভবিক।মঙ্গলবার রাতে গ্লাসগোর হ্যাম্পডন পার্কে ২-১ গোলের নাটকীয় জয়ে সুইডিশদের কাঁদিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছায় ইউক্রেন।

ম্যাচের শুরুতে সুইডেনের আধিপত্য থাকলেও ২৭তম মিনিটে এগিয়ে যায় ইউক্রেন। ডান দিক থেকে আন্দ্রে ইয়ারমোলেঙ্কোর ক্রসে বাঁ পায়ের ভলিতে জাল খুঁজে নেন আর্তেম দোভবিক।

প্রথমার্ধের দুই মিনিট আগে সমতায় ফেরে সুইডেন। প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে ফর্সবার্গের বাঁ পায়ের জোরালো শট প্রতিপক্ষে এক ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে দিক পাল্টে জালে জড়ায়।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে দুর্ভাগ্যবশত গোল পায়নি ইউক্রেন। আট গজ দূর থেকে সিদরচুকের শপ পোস্টে লাগে।
৬৬তম মিনিটে দেজান কুলুসেভস্কির শট ঝাঁপিয়ে ঠেকান ইউক্রেনের গোলরক্ষক। খানিক বাদে দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে ফর্সবার্গের জোরালো শট ক্রসবারে লাগে।

নির্ধারিত সময়ের শেষ দিকে ভালো একটি সুযোগ পান কুলুসেভস্কি। ডি-বক্সে তার শট পা বাড়িয়ে ঠেকিয়ে দেন এক ডিফেন্ডার।

৯৯তম মিনিটে বড় ধাক্কাটা খায় সুইডেন। প্রতিপক্ষের আর্তেম বেসেদিনকে মারাত্মক ফাউল করে শুরুতে হলুদ কার্ড দেখেন মার্কাস দানিয়েলসন। পরে ভিএআরের সাহায্যে তাকে লাল কার্ড দেখান রেফারি।

ওই সুযোগ কাজে লাগায় ইউক্রেন। ১২০ মিনিটের পর তিন মিনিট যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে আসে জয়সূচক গোল। বাঁ দিক থেকে সতীর্থের ক্রসে হেডে ঠিকানা খুঁজে নেন আর্তেম। আগামী শনিবার ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হবে ইউক্রেন।

বাংলা প্রবাহ/আর আই

,
শর্টলিংকঃ