করোনা আবহে মন ছুঁয়ে যাবে প্রসেনজিতের ছবি ‘নিরন্তর’

  • 3
    Shares

পরিচালক চন্দ্রাশিস রায়ের প্রথম ছবি ‘নিরন্তর’। বিশ্বাস করতে সত্যিই অসুবিধে হয় এমন সুচারু নৈপুণ্যে গাঁথা দৃশ্যের পর দৃশ্য, ঘটনার পর ঘটনা, চরিত্রগুলোর কি সাবলীল প্রবেশ ও প্রস্থান! কোথায় কতটুকু বলতে হবে, এবং তার চেয়েও বড় কথা কোথায় থামতে হবে, কোন দৃশ্যটা কোথায় কাট করার পর কোন দৃশ্যে ঢুকতে হবে সেটা ঠিক অংকের মতো সাজিয়ে চিত্রনাট্যাটি লিখেছেন চন্দ্রাশিস। সমীক হালদার তাঁর মোলায়েম ক্যামেরা তুলি বুলিয়ে শুধু চোখের আরাম দিতে নয়, মনের খিদে মেটানোর মত করেই পর্দার কানভাসটি ভরিয়ে দিয়েছেন।

হ্যাঁ, গল্পটি মাত্র দু-তিন লাইনেই বলে দেওয়া যায়। কিন্ত ‘নিরন্তর’ ঠিক গল্পকেন্দ্রিক সিনেমা নয়। অনেকটাই অনুভব ও হৃদয়কেন্দ্রিক। এটা সংবেদনশীল মন এবং অনুভব দিয়ে হৃদয়ঙ্গম করার ছবি। দু’জোড়া দম্পতির বিষাদময় কাহিনি নিয়ে এই ‘নিরন্তর’। এক জোড়ায় রয়েছেন প্রসেনজিৎ ও অঙ্কিতা, নিঃসন্তান দম্পতি। অন্য জোড়া হচ্ছেন নতুন দুই মুখ সত্যম ও পুনম গুরুং, বয়সে তরুণ। সন্তান না হওয়ার কারণে অঙ্কিতা ডিপ্রেশনের মানসিক রোগী, অসুস্থ। স্বামী প্রসেনজিৎ ‘পিতা’ হতে না পারার আক্ষেপে যেমন বিষণ্ণ, তেমনি অসুস্থ স্ত্রী’র শরীর স্বাস্থ্য নিযেও চিন্তিত এবং কিছুটা বিরক্তও। অফিস কর্মী একাবল্লী খান্নার সাহচর্য কিছুটা হয়তো প্রলেপ দেয় সেই বিরক্তির ক্ষতে।

, , ,
শর্টলিংকঃ