কে এই মিনা ফারাহ?

লেখক- আলী আকবর টাবী

নিউইয়র্ক প্রবাসী লেখিকা। পেশায় দন্ত চিকিৎসক। প্রকৃত নাম মিনা রানী সাহা। পিতা ছিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সুরেন্দ্র মোহন সাহা। ফরহাদ রেজাকে বিয়ে করে মুসলিম হন এবং নাম পরিবর্তন করে হয়ে যান ‘মিনা ফারাহ’।
যুদ্ধাপরাধী মুহাম্মদ কামারুজ্জান ছিলেন একই জেলার বাজিতখিলা ইউনিয়নের কৃষকসন্তান। চালচুলা বলতে তেমন কিছুই ছিল না। মুক্তিযুদ্ধের সময় হিন্দুদের বাড়িঘর লুটপাট করে অঢেল সম্পদের মালিক হন। মুক্তিযুদ্ধের সময় মিনা ফারাহ-র বাবার শেরপুর নয়ানীবাজার বাসভবনে তৎকালীন আলবদর কমান্ডার কামারুজ্জামান টর্চার সেল বানিয়ে মানুষ হত্যাসহ নানাধরণের মানবতাবিরোধী হত্যাকাণ্ড চালায়।

কামারুজ্জামানের মানবতাবিরোধী অপরাধ সম্পর্কে মিনা ফারাহ জাতীয় দৈনিক ও গণমাধ্যমে প্রচুর লেখালেখি করেন এবং সাক্ষাৎকার দেন।
আমার ‘মতিউর রহমান নিজামী:আলবদর থেকে মন্ত্রী’ বইটি প্রকাশিত হলে দৈনিক জনকন্ঠে তাঁর একটি কলামে বইটির উপর গুরুত্ব আরোপ করে কয়েকটি লাইন লেখেন। তিনি লেখেন, “জামায়াতে ইসলামের মুখোশ উন্মোচনের জন্য আলী আকবর টাবী’র এই বইটি যথেষ্ট”। হিটলারের সাথে জিয়াউর রহমানের তুলনা করে একটি গ্রন্থ প্রকাশ করেন, নাম ‘হিটলার থেকে জিয়া’। এমনকি কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের মামলার তদন্ত কার্যক্রম শুরু হলে তিনি স্ব-উদ্যোগে অতিশয় তৎপর হয়ে উঠেন এবং রাষ্ট্রপক্ষকে বিভিন্ন তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করেন। সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে তাঁকে কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান সাক্ষী নির্বাচিত করা হয়।

কিন্তু যুদ্ধাপরাধীদের মামলা শুরু হলে তিনি রাতারাতি বদলে যেতে থাকেন এবং এক সময় চুপচাপ হয়ে যান। এমনকি শেষ অবধি মামলায় সাক্ষী দিতেও আসেননি। অনেক টাকায় জামায়াতিদের কাছে তিনি বিক্রি হয়ে যান। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকার্য শুরু হলে জামায়াত প্রচুর অর্থ বিনিয়োগ করে বিদেশে লবিষ্ট নিয়োগ করে। নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুর ভাইয়ের নাতনী শর্মিলা বসুকেও তারা ক্রয় করতে সক্ষম হয়। শর্মিলা বসু পাকিস্তান ও তাদের অনুচরদের পক্ষে সাফাই গেয়ে `Dead Reckoning: Memories of 1971 Bangladesh War’’নামে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করে একটি পুস্তিকা প্রকাশ করেন।

মিনাহ ফারাহ এখন বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ক্রমাগত বিষদগার করে চলেছেন এবং জামায়াতের পক্ষে ফফর দালালী করছেন। তাঁর বক্তব্য রেকর্ড করে ইউ টিউবে আপলোড করছেন। তিনি বলেছেন, ‘আমাদের রাজনীতিতে যদি জামায়াত প্রভাব বিস্তার করতে পারতো তা হলে আমাদের হারিয়ে যাওয়া মূল্যবোধ ফিরে আসতো। বর্তমান সরকার জামায়াতকে ছেড়াবেড়া করে ফেলেছে। শেখ হাসিনা জামায়াতের পেছনে লেগে আছে। ভবিষ্যতে জামায়াতের সন্তানরা এদেশ শাসন করবে।’

লেখক-গবেষক আলী আকবর টাবী
সাংগঠনিক সম্পাদক, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি

(বাংলা প্রবাহ ২৪ ডটকম’র সম্পাদকীয় নীতিমালার সঙ্গে লেখকের মতামতের মিল নাও থাকতে পারে। প্রকাশিত লেখাটির আইনগত, মতামত বা বিশ্লেষণের দায়ভার সম্পূর্ণরূপে লেখকের, বাংলা প্রবাহ ২৪ ডটকম’র কর্তৃপক্ষের নয়। লেখকের নিজস্ব মতামতের কোনো প্রকার দায়ভার বাংলা প্রবাহ ২৪ ডটকম নিবে না।)

বাংলা প্রবাহ /এন এ

শর্টলিংকঃ