বাঘা যতীনের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আগামীকাল নির্মূল কমিটির স্মরণসভা

  • 47
    Shares

উনিশ শতকের শেষার্ধেবৃটিশ ঔপনিবেশিক শাসনের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ও ভারতবর্ষের বিপ্লবীরা যে সশস্ত্র স্বাধীনতা সংগ্রামের সূচনা করেছিলেন ইতিহাসের ধারাবাহিকতায় তার চূড়ান্ত অভিব্যক্তি ছিল ১৯৭১-এর মুক্তিযুদ্ধ এবং বিশ্বের মানচিত্রে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয়। স্বাধীন বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর একাধিক ভাষণে স্বাধীনতা সংগ্রামী নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু, মাষ্টারদা সূর্যসেন, বাঘা যতীন, ক্ষুদিরাম প্রমুখের অবদান স্মরণ করেছেন।বিপ্লবী যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায় (১৮৭৯-১৯১৫), যিনি বাঘা যতীন নামে খ্যাত, জন্ম গ্রহণ করেছেন কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালীর কয়া গ্রামে তাঁর মাতুলালয়ে। ছাত্রজীবনেই তিনি অগ্নিযুগের বিপ্লবীদের সংস্পর্শে আসেন এবং দেশমাতৃকার মুক্তির শপথ গ্রহণ করেন। ১৯১৫ সালের ১০ সেপ্টেম্বর তিনি ইংরেজ বাহিনীর বিরুদ্ধে বাঘা যতীনের জীবনের মূলমন্ত্র ছিল “আমরা মরব, দেশ জাগবে”। মাতৃভূমির মুক্তির জন্য তাঁর মহান আত্মত্যাগ যুগে যুগে স্বাধীনতার জন্য জীবন উৎসর্গ করতে অনুপ্রাণিত করেছে বাংলাদেশ ও ভারতবর্ষের তরুণ সমাজকে। ’৭১-এর মুক্তিযুদ্ধে তরুণদের এই আত্মদান অনিবার্য করেছে নৃশংস পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে অবিস্মরণীয় বিজয়ে। আগামীকাল ১০ সেপ্টেম্বর(২০২০) বিকেল ৩টায় শহীদ বাঘা যতীনের ১০৫তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির এক আন্তর্জাতিক ওয়েবিনারের আয়োজন করেছে।

সংগঠনের সভাপতি লেখক সাংবাদিক শাহরিয়ার কবিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠেয় এই ওয়েবিনারে বক্তব্য প্রদান করবেন শহীদ বাঘা যতীনের পৌত্র ইন্দুজ্যোতি মুখোপাধ্যায় (পশ্চিমবঙ্গ), বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, সমাজকর্মী আরমা দত্ত এমপি, অধ্যাপক মেজবাহ কামাল, অধ্যাপক মোহাম্মদ সেলিম, গবেষক অরিন্দম মুখোপাধ্যায় (মহাসচিব, ইন্সটিটিউট অব সোশাল এ্যাণ্ড কালচারাল হিস্ট্রি, ভারত), নির্মূল কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী মুকুল এবং সংগঠনের আমেরিকা, ইউরোপ, এশিয়া ও অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন শাখার নেতৃবৃন্দ।

স্থানীয় ভাবে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কুমারখালী ও কয়া শাখা এলাকার বাঘা যতীন থিয়েটারের উদ্যোগে কয়া মহাবিদ্যালয় প্রাঙ্গনে ১০ সেপ্টেম্বর সকালে এক স্মরণ সভার আয়োজন করেছে।

বাংলা প্রবাহ/এম এম

,
শর্টলিংকঃ