মুজিববর্ষে ভিডিও বার্তা দেওয়ায় মোদীকে সম্প্রীতি বাংলাদেশের অভিনন্দন

নিউজ ডেস্ক:

বাংলাদেশের জাতির পিতা, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে ভারতের  প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র’র মোদী ভিডিও বার্তাকে স্বাগত জানিয়েছে সম্প্রীতি বাংলাদেশ। সংগঠনটির আহবায়ক পীযুষ বন্দোপাধ্যায় ও সদস্য সচিব অধ্যাপক ডাঃ মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল) এক বিবৃতিতে শ্রী নরেন্দ্র মোদীকে এ জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

বিবৃতিতে তারা  আশাবাদ ব্যক্ত করেন,   প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও  প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীর সুযোগ্য ও দুরদর্শী নেতৃত্ব বাংলাদেশ ও ভারতের বন্ধুত্বপূর্ণ ও সহযোগীতামূলক সম্পর্ক আগামীতে বিশ্ববাসীর সামনে এক অনন্য নজির হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে।

প্রসঙ্গত,  গত মঙ্গলবার ১৭ই মার্চ জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত ‘মুক্তির মহানায়ক’শীর্ষক অনুষ্ঠানে শ্রী মোদীর এই ভিডিও বার্তাটি প্রচার করা হয়। বার্তার শুরুতেই তিনি জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সমগ্র বাংলাদেশকে ১৩০ কোটি ভারতীয় ভাই-বন্ধুদের পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানান। বঙ্গবন্ধুর এই জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে তাকে আমন্ত্রন জানানোয় তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান।

মোদী করোনা ভাইরাসজনিত পরিস্থিতির কারনে ব্যাক্তিগতভাবে ঢাকায় আসতে না পারলেও, তাকে ভিডিও-র মাধ্যমে যুক্ত হওয়ার সুযোগ করে দেওয়ায় সন্তোষ  প্রকাশ করেন। শ্রী মোদী তার বক্তব্যে বঙ্গবন্ধুকে একজন সাহসী নেতা, দৃঢ়চেতা মানুষ, ঋষিতুল্য শান্তিদূত, সাম্যের রক্ষক ও জোড়-জুলুমের বিরুদ্ধে ঢাল হিসেবে আখ্যায়িত করেন। বাংলাদেশের তরুনরা আজ তাদের প্রিয় নেতার আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে দেশকে যেভাবে ‘বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায়’রূপান্তরিত করার জন্য দিন-রাত কাজ করে চলেছেন তিনি তার প্রশংসা করেন।

একাত্তরের ধ্বংসলীলা ও গনহত্যা থেকে বের করে এনে বাংলাদেশকে একটি ইতিবাচক ও প্রগতিশীল সমাজে পরিনত করায় বঙ্গবন্ধুর অবদানকে স্মরণ করে শ্রী মোদী তার বানীতে উল্লেখ করেন যে ঘৃনা ও নেতিবাচকতা কখনই কোন দেশের উন্নয়নের ভিত্তি হতে পারেনা। পঁচাত্তরের নির্মম হত্যাকান্ড থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানাকে ঈশ্বর রক্ষা করায় তিনি নিজেকে এবং বাংলাদেশকে ভাগ্যবান মনে করেন বলে জানান।

সামাজিক সূচকে অভূতপূর্ব উন্নতি করায় বাংলাদেশের প্রশংসা করে মোদি বলেন, আতংক ও সহিংসতাকে রাজনীতি ও কুটনীতির হাতিয়ার করে একটি সমাজ ও জাতি যেখানে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে উপনীত, সেখানে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ যেভাবে অন্তর্ভুক্তিকরন ও উন্নয়নমূখী নীতিমালা অনুসরন করে এগিয়ে চলেছে তা বিশ্ববাসী দেখতে পাচ্ছে বলে উল্লেখ করে নানা সামাজিক সূচকে অভূতপূর্ব উন্নতি করায় তিনি বাংলাদেশের প্রশংসা করেন।

বাংলাদেশকে দক্ষিন এশিয়ায় ভারতের বৃহত্তম বানিজ্য ও উন্নয়ন অংশিদার হিসেবে আখ্যায়িত করে শ্রী নরেন্দ্র মোদী গত পাঁচ-ছয় বছরে দু দেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে যে নানামূখী উন্নতি হচ্ছে তার একটি বৃত্তান্ত তুলে ধরেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ, লালন শাহ, জীবনানন্দ দাশ ও ইশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মত মনীষিরা ভারত ও বাংলাদেশের গভীর সম্পর্কের ক্ষেত্রে অভিন্ন ঐতিহ্যের ভিত্তি বলে শ্রী মোদী তার বক্তব্যে জানান।

আগামী বছর বাংলাদেশের স্বাধীনতার পঞ্চাশতম আর তার পরের বছর ভারতের স্বাধীনতার পঁচাত্তরতম বার্ষিকীতে এই দু’দেশের মধ্যে বিরাজমান বন্ধুত্ব্যপূর্ন সম্পর্ক এক অনন্য উচ্চতায় উন্নিত হবে বলেও তিনি তার বক্তব্যে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।#

টি/কে

শর্টলিংকঃ