সারাদেশে চলমান ধর্ষণের বিচারের দাবি জনিয়েছে উত্তরণ

  • 31
    Shares

রাবি প্রতিনিধিঃ
খাগড়াছড়িতে বাঙ্গালী কর্তৃক পাহাড়ী নারী ও সিলেটে ছাত্রলীগ কর্তৃক গৃহবধু গণধর্ষণের প্রতিবাদ এবং বিচারের দাবিতে অনলাইন মুভমেন্ট করেছে উত্তরণ লেখক ও পাঠকের সূতিকাগার। আজ রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫ টা থেকে ২৭ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫ টা পর্যন্ত অনলাইন প্রতিবাদ চলবে।

প্রতিবাদ কর্মসূচিতে তিনটি দাবি জানানো হয়, ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে, ভুক্তভোগী নারীর স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে, পাহাড় থেকে সমতলে সর্বত্র নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

সংগঠনের প্রধান সমন্বয়কারী মহব্বত হোসেন মিলন বলেন, সম্প্রতি খাগড়াছড়ি, যশোর, সিলেটে নারী ধর্ষণের ঘটনাটি নিছক কোনো ঘটনা নয়। দীর্ঘদিনের বিচারহীনতার সংস্কৃতি, ভঙ্গুর শিক্ষাব্যবস্থা এবং সামাজিক ও রাজনৈতিক দায়বদ্ধতার অভাবে প্রতিনিয়ত এই ঘটনাগুলো ঘটছে। ধর্ষীত হওয়ার পর উল্টো সমাজ কর্তৃক নারীকে দোষারোপ করার চিন্তাগত অবস্থা অপরদিকে ধর্ষকদের বিচার করার ক্ষেত্রে রাষ্ট্রের অনীহার মাধ্যমে ধর্ষকদের উৎসাহী করে তোলা হচ্ছে। যার কারণে প্রতিদিন ধর্ষণের ঘটনাগুলো ঘটছে। আমাদের দেশের নারীরা গৃহ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, রাস্তায়, যানবাহন কিংবা কর্মস্থল কোথাও নিরাপদ নয়। এভাবে চলতে থাকলে পুরো রাষ্ট্রব্যবস্থা চরম সংকটের মধ্যে পড়বে। ফলে রাষ্ট্রের উচিত হবে দ্রুত ধর্ষকদের বিচারের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা৷ এর পাশাপাশি ধর্ষণের মনস্তত্ব নিয়ে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে উন্মুক্ত আলোচনা ও কর্মশালার ব্যবস্থা করতে হবে।

উত্তরণের সভাপতি সোহাগ সিকদার বলেন, পাহাড়ে কিংবা সমতলে কোথাও নারীরা নিরাপদ নয়। পাহাড়ী নারী ধর্ষণের ঘটনা এটাই প্রথম নয়। পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশের সব জায়াগায় আদিবাসী নারীরা নিপীড়নের শিকার হচ্ছে। এদিকে একদিন পরেই সিলেটে ছাত্রলীগ কর্তৃক গৃহবধূ ধর্ষণের মতো ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটে। এসব ধর্ষণের ঘটনা আজকাল স্বাভাবিক নিয়মে পড়ে গেছে। আমরা মনে করি এর মুল কারণ হচ্ছে দীর্ঘদিনের বিচারহীনতার সংস্কৃতি। আমরা দাবি জানাই এই বিচারীনতার সংস্কৃতি থেকে বেড়িয়ে এসে প্রশাসন যেন দ্রুত এসব ঘটনার বিচার করে।

উত্তরণের সাধারণ সম্পাদক তাসবিয়া ইসলাম তুলি বলেন স্বাধীনতার এতো বছর পড়ে এসেও নারীদের জন্য আমরা নিরাপদ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে পারি নাই। ঘরে বাইরে কোথাও নারীরা নিরাপদ নয়। পাহাড়ী নারীদের অবস্থা আরো বেশি অনিরাপদ। সেনাবাহিনী, বাঙ্গালীসহ স্থানীয় প্রভাবশলী কর্তৃক পাহাড়ী নারীরা প্রতিনিয়ত ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। কিন্তু এর কোন বিচার আমাদের চোখে দৃশ্যমান না। সম্প্রতি খাগড়াছড়িতে যে গণধর্ষণের ঘটনাটি ঘটেছে এর নিন্দা জানানোর ভাষা নেই। আমরা দাবি জানাই দ্রুত এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার করতে। ভুক্তভোগী নারীর উন্নত চিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে। এবং পাহাড় থেকে সমতলে সর্বত্র নারীর নিরাপত্তা রাষ্ট্রকে দিতে হবে।

#বাংলা প্রবাহ/এএল

, ,
শর্টলিংকঃ