তালেবান যাদের হত্যা করছে তারা মুসলিম, কিন্তু তালেবানের মতো জঙ্গী-মৌলবাদী মুসলিম নয়

পৃথিবীর ইতিহাসে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসের পৃষ্ঠপোষক দুর্বৃত্ত রাষ্ট্র পাকিস্তান মুসলিম ধর্ম প্রধান রাষ্ট্র হয়েও যত মুসলিম হত্যা করেছে তার তুননা নজিরবিহীন। মুসলিম/অমুসলিম, শ্রসস্ত্র/নিরস্ত্র কোন কিছুর তোয়াক্কা না করে ১৯৭১ সালে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ৩০ লক্ষ নিরস্ত্র বাঙালিদের নির্মম ভাবে হত্যা করেছিল। এ প্রসঙ্গে লেখক সাংবাদিক চলচ্চিত্রনির্মাতা শ্রদ্ধেয় শাহরিয়ার কবির সভ্যতার মানচিত্রে যুদ্ধ যুদ্ধাপরাধ এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচার গ্রন্থের ভূমিকায় বলেন, ‘হত্যা, নির্যাতন ও ধ্বংসের স্থান-কাল বিচারে ’৭১ এর নয় মাসে ৫৬ হাজার বর্গমাইলের বাংলাদেশে সংঘটিত গণহত্যা, মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধ স্মরণকালের ইতিহাসে তুলনাহীন।’ অবিরত মুসলিমদের হত্যার মাধ্যমে কোন ইসলাম প্রতিষ্ঠার করতে চাচ্ছে পাকিস্তান এবং তাদের সৃষ্ট নানা নামের জঙ্গী মৌলবাদী সন্ত্রাসী সংগঠন গুলো? জঙ্গীরাষ্ট্র পাকিস্তান এবং তাদের সৃষ্ট তালেবান, জামায়াত-হেফাযত বা বিএনপি যে নামেই ডাকা হোক না কেন তাদের উদ্দেশ্য মেধাশুন্য জঙ্গী-মৌলবাদী-সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করা।

জঙ্গী মোলবাদীরা মেধা-সৃষ্টিশীলতা, শিল্প-সংস্কৃতি কে খুব ভয় পায়। এরা বিশ্বের যেখানেই সুযোগ পেয়েছে বুদ্ধিজীবীদের খুঁজে খুঁজে নির্মম ভাবে হত্যা করেছে এবং শিল্প সংস্কৃতি ধ্বংস করেছে। মৌলবাদী জঙ্গী তালেবানেরাও আফগানস্তানে বুদ্ধিজীবীদের তালিকা করে খুঁজে খুঁজে বের করছে হত্যা করার জন্য। ইতিমধ্যে অনেক বুদ্ধিজীবীকে তারা হত্যা করেছে। নারীদের উপর চলছে আরও ভয়াবহ নির্যাতন। তালেবান আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থা বাদ পাকিস্তানের মাদরাসার মডেল আফগানিস্তানে প্রতিষ্ঠা করতে চায়। পাকিস্তানের এসকল মাদ্রাসা জঙ্গী তৈরির সূতিকাগার। পাকিস্তানি মডেলের মাদ্রাসা তৈরির মাধ্যমে আফগানস্তানের সকল শিশুদের জঙ্গীবাদের ট্রেনিং দেওয়া হবে এবং বিকৃত মস্তিষ্কের মৌলবাদী আদর্শে গড়ে তোলা হবে এটা নিশ্চিত ভাবেই বলা যায়।

বাংলাদেশে পাকিস্তানের রেখে যাওয়া খেতমদগাররা ধর্মের অপব্যবহার করে জঙ্গী তালেবান নিয়ে নানা ধরনের বিভ্রান্তি ও গুজব ছড়াচ্ছে। তারা বাংলাদেশকেও আফগানস্তানের মত মৌলবাদী জঙ্গী সন্ত্রাসী তালেবানের হাতে তুলে দিতে চায়। সভ্য শিক্ষিত তরুণ সমাজকে মেধাহীন মধ্যযুগীয় বর্বর বানাতে চায়। সে উদ্দেশ্যে তারা বরাবরের মত ধর্মকে অপব্যবহার করছে, শান্তি ও মানবতার ইসলামের অপব্যাখ্যা করছে।

জঙ্গী মৌলবাদী সন্ত্রাসের ব্যাপারে আমাদের সকল কে সজাগ থাকতে হবে। লেখক সাংবাদিক চলচ্চিত্রনির্মাতা শ্রদ্ধেয় শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘পাকিস্তান ও আমেরিকা ইসলামের নামে নিজেদের রাজনৈতিক মতলবে তালেবান ও আল কায়দা সৃষ্টি করেছে এবং বিশ্বব্যাপী ইসলামের নামে সন্ত্রাসী জঙ্গীবাদ ছড়িয়ে দিয়েছে। আমাদের তরুণ সমাজকে এসব বিষয়গুলো জানতে হবে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ শিল্প, সংস্কৃতি ও রাজনীতির সকল মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর ধর্মনিরপেক্ষ মানবতা এবং সুফীসাধকদের শান্তি, সমন্বয় ও মানবতার ইসলামের কথা তুলে ধরতে হবে। ধর্ম-বর্ণ-জাতি-ভাষা-লিঙ্গ নির্বিশেষ সব মানুষের সমান অধিকার মর্যাদার সংগ্রামে তরুণ সমাজকে যুক্ত হতে হবে, যুক্ত করতে হবে। অন্যথায় আমাদের যাবতীয় অর্জন মধ্যযুগীয় তামসিকতায় হারিয়ে যেতে পারে।’ তাই আসুন আমরা নিজে সচেতন হয়, নিজেদের পরিবার কে সচেতন করি, আশেপাশের মানুষদের সচেতন করি। তাহলেই আমাদের প্রজন্ম ও দেশ নিরাপদ থাকবে।

লেখক: মতিউর রহমান (মর্তুজা)
সম্পাদক, বাংলা প্রবাহ ডটকম
এফফিল ফেলো, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
সাবেক আহবায়ক ও সভাপতি, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

, , , ,
শর্টলিংকঃ