মাস্ক এবং ফুল দিয়ে খাদিজা হলের শিক্ষার্থীদের বরণ


নোবিপ্রবি প্রতিনিধি

দীর্ঘদিন পর হলে ফিরে উচ্ছ্বসিত নোবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা। দীর্ঘ ১৯ মাস বন্ধ থাকার পর হল খুলেছে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি)। ফলে হলে ফিরতে পেরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থীরা। রোববার (৩১ অক্টোবর) সকাল শিক্ষার্থীদের ফুল এবং মাস্ক দিয়ে বরণ করে নেয় হযরত বিবি খাদিজা হল কর্তৃপক্ষ।

সকাল থেকেই শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে ক্যাম্পাস। প্রতিটি হলের সামনে সকাল ১০টার আগে থেকেই শিক্ষার্থীদের ভিড় দেখা যায়। শিক্ষার্থীরা সকাল থেকেই ব্যাগে ব্যক্তিগত জিনিসপত্র নিয়ে রিকশা, সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ বিভিন্ন উপায়ে ক্যাম্পাসে ফিরতে দেখা যায়।

খাদিজা হলের প্রভোস্ট ড.গাজী মহসিন বলেন,
শিক্ষার্থীদের ছাড়া ইন্সটিটিউট প্রাণহীন। দীর্ঘদিন পর শিক্ষার্থীরা হলে ফেরায় প্রাণ ফিরে পেয়েছে হল এবং বিশ্ববিদ্যালয়। এতে আমরা অনেক বেশি উচ্ছ্বসিত এবং আনন্দিত। শিক্ষার্থীরা তাদের পড়াশোনা ও গবেষণায় মনোযোগী হবেন।

হলের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, হলের কিছু কনস্ট্রাকশনের কাজ চলমান রয়েছে। আগামী দুই/তিন দিনের মধ্যে আশা করি সব ঠিক হয়ে যাবে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের জন্য খাদিজা হলে একটি আইটি সেন্টার করার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। খুব শিগগিরই এটার কাজ শুরু হবে। এতে সুবিধা বঞ্চিত শিক্ষার্থীরা তারা গবেষণা এবং পড়াশোনায় অনেক উপকৃত হবে বলে আমরা আশাবাদী।

নোবিপ্রবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. দিদার-উল-আলম বলেন, দীর্ঘদিন পর শিক্ষার্থীদের আমরা হলে ফিরে আনতে পেরেছি। সকাল ১০টা থেকে হলে উঠতে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন আবাসিক হলের শিক্ষার্থীরা। কমপক্ষে এক ডোজ টিকা দেওয়া ও হলের বৈধ কাগজপত্র দেখানোর শর্তসাপেক্ষে আবাসিক হলে উঠেছে।

উপাচার্য আরও বলেন, ৬০-৭০ শতাংশ শিক্ষার্থী উপস্থিত হলে আমরা একাডেমিক কার্যক্রম শুরু করার সিদ্ধান্ত নিবো। এ সময়ে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে চলার আহ্বান জানান উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. দিদার-উল-আলম।

, ,
শর্টলিংকঃ