মাস্কিপক্স নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

Ecare Solutions

আফ্রিকার বাইরেও বিভিন্ন দেশে ব্যাপক ছড়িয়ে পড়ছে মাঙ্কিপক্স ভাইরাস। তবে এই ভাইরাস নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

বিবিসি জানায়, ইতিমধ্যে ইউরোপ, আমেরিকা এবং অস্ট্রেলিয়ায় মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত শতাধিক রোগী শনাক্ত হয়েছে; যাদের শরীরে ফুসকুড়ি দেখা দিয়েছে এবং জ্বরে আক্রান্ত।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে কিন্তু বিপুলসংখ্যক মানুষের আক্রান্তের ঝুঁকি খুবই কম।মধ্য ও পশ্চিম আফ্রিকার প্রত্যন্ত অঞ্চলে সাধারণত এই ভাইরাস দেখা যায়।

সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে ডব্লিউএইচও এর বিশেষজ্ঞ মারিয়া ফন কেরখোভে বলেন, মাঙ্কিপক্স পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ পর্যায়ে রয়েছে। আমরা একজনের থেকে অন্যজনে ছড়ানো বন্ধ করতে চাই। যেসব দেশে এখনো ভাইরাসটি ছড়ায়নি সেসব দেশে আমরা এটি করতে পারি। আফ্রিকার বাইরে ১৬টি দেশে ইতিমধ্যে এই ভাইরাস ছড়িয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আক্রান্ত ব্যক্তির কাছ থেকে অন্যদের মাঝে সহজে ছড়ায় না এই ভাইরাস। মহামারি করোনার মতো ব্যাপক হারে ছড়ানোর ঝুঁকি নেই এতে।

ফন কেরখোভ বলেন, রোগটি খুব সহজে মানুষের মধ্যে ছড়ায় না। কিন্তু খুব কাছাকাছি শারীরিক সংস্পর্শের মাধ্যমে রোগটি ছড়াতে পারে।

এটা করোনার মতো বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মৃদু বা উপসর্গহীন নয়। বরং মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত হলে শরীর খারাপ করবে এবং শরীরে ফোসকার মতো গোটা দেখা দেবে। যদিও সাধারণত এসব হালকাই থাকে এবং দুই-চার সপ্তাহের মধ্যে মিলিয়ে যায়।

 

 

বাংলা প্রবাহ/ সু

Ecare Solutions
শর্টলিংকঃ