কঠিন জীবন সংগ্রামের মধ্যে বড় হয়েছেন জয়: অধ্যাপক ডা. স্বপ্নীল

Ecare Solutions

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য দৌহিত্র, ভবিষ্যৎের জন্য যিনি ডিজিটাল বাংলাদেশের অনুঘটকের কাজ করছেন তিনি হচ্ছেন সজীব ওয়াজেদ জয়। আমরা সকলেই জানি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেওয়া অত্যন্ত স্নেহভাজন নামটি হচ্ছে জয়। জয় নামটি অনেক বড় তাৎপর্য বহন করে। এই নামটির সাথে বাংলাদেশের স্বাধীনতা জয় জড়িয়ে আছে।

দৈনিক ভোরের পাতার নিয়মিত আয়োজন ভোরের পাতা সংলাপের ৭৭৮তম পর্বে এসব কথা বলেন আলোচকরা। ভোরের পাতা সম্পাদক ও প্রকাশক ড. কাজী এরতেজা হাসানের নির্দেশনা ও পরিকল্পনায় অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের অধ্যাপক, জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষণ পরিষদের (জানিপপ) চেয়ারম্যান ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ,  ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়ার ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. শাহিনূর রহমান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে লিভার বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল,  বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের পরিচালক কর্নেল (অব.) কাজী শরীফ উদ্দীন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ভোরের পাতার বিশেষ প্রতিনিধি উৎপল দাস।

ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য দৌহিত্র, ভবিষ্যৎের জন্য যিনি ডিজিটাল বাংলাদেশের অনুঘটকের কাজ করছেন তিনি হচ্ছেন সজীব ওয়াজেদ জয়। করোনা মহামারিতে যখন গোটা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অর্থনীতি টালমাটাল, পরিস্থিতি মোকাবিলায় এমনকি উন্নত দেশগুলোও হিমশিম খাচ্ছিল, তখন বাংলাদেশে ডিজিটাল উদ্যোগ মানুষকে দেখিয়েছে নতুন পথ, জুগিয়েছে প্রেরণা। দেশব্যাপী লকডাউনে শিক্ষার্থীদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম যেন থেমে না যায় সেজন্য প্রাথমিক, মাধ্যমিক, মাদরাসা ও কারিগরি পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের জন্য ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি করা হয়। সংসদ, টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে দেশব্যাপী সম্প্রচার করা হয়। মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ, দেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে হাইটেক পার্ক নির্মাণ, ফোর-জি চালু, ইন্টারনেটের দাম কমানো, কম্পিউটারের শুল্কমুক্ত আমদানি, ফ্রিল্যান্সিংয়ে উৎকর্ষ সাধনসহ অনলাইনে নাগরিক সুবিধা নিশ্চিতে সজীব ওয়াজেদ জয়ের অবদান অনন্য। যার সুফল আজ ভোগ করছে কোটি বাঙালি। কেননা করোনা মহামারিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থমকে গেলেও তথ্যপ্রযুক্তিতে এগিয়ে থাকা বাংলাদেশ পেয়েছে বাড়তি সুবিধা। সজীব ওয়াজেদ জয় অসাধারণ উদ্ভাবনী চিন্তার অধিকারী। তিনি তরুণ সমাজকে তাদের দক্ষতার সর্বোচ্চ ব্যবহার এবং প্রথাগত ছকের বাইরে গিয়ে সফলতা অর্জনের ব্যাপারে উৎসাহিত করে চলেছেন। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম তাকে ‘ইয়াং গ্লোবাল লিডারস’দের একজন হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। এছাড়া বহির্বিশ্বে তার গ্রহণযোগ্যতা দেশীয় যুবাদের অনুপ্রেরণা দেয়।

অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল বলেন, আজকে ভোরের পাতা সংলাপের আলোচ্য বিষয় সত্যিই খুব প্রাসঙ্গিক। সজীব ওয়াজেদ জয়: দুর্গম যাত্রার অকুতোভয় নাবিক। তিনি একটি কঠিন সময়ে দেশকে দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন শুধু তা নয় কিন্তু, বাংলাদেশ যখন জ্বলছিল সে সময় তার জন্ম হয়েছিল। তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় জন্মগ্রহণ করেছিলেন এবং সেসময় আমাদের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কারান্তর ছিলেন এবং বন্দি বাংলাদেশের মধ্যেই সজীব ওয়াজেদ জয়ের জন্ম হয়েছিল। তার জন্মের পরপরই দেশ স্বাধীন হয়েছিল। পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে তার শৈশবের একটা অংশ কেটেছে শরণার্থী হিসেবে। তারপর যখন শেখ হাসিনা দেশে  প্রত্যাবর্তন করলেন তখন তার বয়স ছিল মাত্র ১১ বছর। তিনি দেশে ফেরার পর আমরা সবাই জানি দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে তাকে যেতে হয়েছে। সেসময় কি একটা কঠিন সময়ের শরণাপন্ন হতে হয়েছিল সজীব ওয়াজেদ জয়কে।  ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে ডিজিটাল বাংলাদেশ কনসেপ্ট অন্তর্ভুক্তি জয়ের চিন্তার ফসল। সার্বিকভাবে বাংলাদেশকে প্রযুক্তিনির্ভর করতে সজীব ওয়াজেদ জয়ের অবদান অনস্বীকার্য। জয়ের ভাবনার আজ সবদিকেই জয়জয়কার।দেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে হাইটেকপার্ক নির্মাণ, ফোর-জি চালু, ইন্টারনেটের দাম কমানো, কম্পিউটার শুল্কমুক্ত আমদানি, ফ্রিল্যান্সিং-এর উৎকর্ষতা, বিভিন্ন দাপ্তরিক কাজ অনলাইনে করাসহ নাগরিক সুবিধাকে মানুষের হাতের মুঠোয় নিয়ে আসাতে সজীব ওয়াজেদ জয়ের স্বপ্নগুলো আজ ডানা মেলেছে সবখানে। বাংলাদেশ আশা করতেই পারে বঙ্গবন্ধুর তৃতীয় প্রজন্মের হাতে বাংলাদেশ একইরকম নিরাপদ এবং শক্তিশালী থাকবে।

লেখক: অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল)
ডিভিশন প্রধান, ইন্টারভেনশনাল হেপাটোলজি ডিভিশন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়
আঞ্চলিক পরামর্শক, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা
সদস্য সচিব, সম্প্রীতি বাংলাদেশ
অর্থ সম্পাদক, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি।

Ecare Solutions
শর্টলিংকঃ