সংবিধান দিবস উপলক্ষে নির্মূল কমিটির সিলেট জেলার আলোচনা সভা

Ecare Solutions

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও বাংলাদেশ গান্ধী আশ্রম ট্রাস্টের ট্রাস্টি অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বলেছেন, দেশ স্বাধীনের মাত্র দশ মাসের মাথায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতির আশা-আক্সক্ষকার অনন্য দলিল জাতীয় সংবিধান প্রণয়ন করেছিলেন। তাঁর দূরদর্শিতার কারণে ৭২ এর সংবিধান সব শ্রেণিপেশার মানুষের অধিকার সংরক্ষিত হয়েছিল। ৭২ এর সংবিধানই দেশের স্বাধীনতার মূলমন্ত্র। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘জাতীয় সংবিধান দিবস’ পালনের সিদ্ধান্ত একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ।

শুক্রবার (৪ নভেম্বর) বিকেলে সিলেট নগরের জিন্দাবাজারস্থ নজরুল একাডেমী হলরুমে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি সিলেট জেলা শাখা আয়োজিত ৫১তম জাতীয় সংবিধান দিবস উপলক্ষ্যে “বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শন এবং ১৯৭২ এর সংবিধান” শীর্ষক আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি সিলেট জেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যক্ষ শামসুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সম্পাদক মনোজ কপালী মিন্টু এবং মনোরঞ্জন তালুকদারের যৌথ পরিচালনায় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি সিলেট জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট শামসুল ইসলাম, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি সিলেট মহানগর সভাপতি অ্যাডভোকেট কিশোর কুমার কর, সিলেট মহানগর সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. জাহিদ সরওয়ার সবুজ, সিলেট জেলা শাখার প্রথম যুগ্ম সম্পাদক সাংবাদিক নেতা ছামির মাহমুদ, ক্রীড়া সংগঠক ফারজানা মিসবাহ।

আলোচনাসভায় অতিথিবৃন্দ বলেন, ৭২ এর সংবিধানে ধর্ম-বর্ণ সকল মানুষের মুক্তির সনদ ছিলো। তাই আমরা ৭২ এর সংবিধানে ফিরে যেতে চাই।

বক্তারা আরও বলেন, জাতির পিতাকে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট হত্যার পর এ দেশের স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তিরা আমাদের এ ৭২ এর সংবিধানকে ক্ষত-বিক্ষত করে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবার ৭২ এর সংবিধান ফিরিয়ে আনতে কাজ করছেন। ৭২ এর সংবিধান পূর্নবহাল এখন সময়ের দাবি।

সভায় বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ পোয়েটস ক্লাবের চেয়ারম্যান কবি মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি সিলেট জেলা শাখার যুগ্ম সম্পাদক ওয়ালি মাহমুদ ওয়ালি, সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজ উদ্দিন সিরুল, কোষাধ্যক্ষ তারা মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা পান্না লাল রায়, কাউন্সিলর নাজনীন আক্তার কনা, হাওর ও পরিবেশ উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি কাশমির রেজা, মানবাধিকার কর্মী ইউসুফ সেলু, শিরিন চৌধুরী, সিলেট জেলা মুক্তিযোদ্ধা যুব কমান্ড নেতা এজাজ আহমদ, সোহেল আহমদ, আখলাক হোসেন, জাহেদ হাসান, বাবুল খান প্রমুখ।

Ecare Solutions
শর্টলিংকঃ